মালের অবর্তমানে ব্যবসা করা হারাম

বিক্রেতার কাছে যে মাল নেই তার ব্যবসা করা অর্থাৎ কোন ব্যবসায়ীর নিকটে ক্রেতা এলাে এবং নির্দিষ্ট মাল সম্পর্কে দর করতে লাগলাে অথচ সেই সময় সেই মাল ব্যবসায়ীর নিকট নেই। এমতাবস্থায় উভয়ে মাল সম্পর্কে এবং দাম সম্পর্কে একমত হল স্বল্পকালীন অথবা দীর্ঘকালীন ব্যবসায়ের চুক্তিতে। এ সময় ব্যবসায়ী বা বিক্রেতার নিকটে সেই মাল নেই এরপর ব্যবসায়ী বাজার থেকে নির্দিষ্ট দ্রব্য ক্রয় করে বিক্রেতাকে বুঝিয়ে দিল পূর্বের মূল্যের ভিত্তিতে স্বল্পকালীন বা দীর্ঘকালীন ব্যবসার চুক্তির ভিত্তিতে। এরূপ ব্যবসা ইসলামে নিষিদ্ধ করা হলাে কেন? কারণ ব্যবসায়ী এমন মাল বিক্রি করল যা তার নিকট নেই অথবা মাল নিজের হস্তগত হওয়ার আগেই সেটা বিক্রি করে ফেললাে। অথবা নির্দিষ্ট মূল্যের ভিত্তিতে অনির্দিষ্ট মাল ধরে বিক্রি করল এরূপ ব্যবসা পুরােপুরী নিষিদ্ধ। কেননা মহানবী
(সা) এ ব্যাপারে স্পষ্টভাবে নিষেধ করেছেন ।
فقال يا رسول الله الرجل يأتيني ويطلب مني البيع وليس
عندي ثم أذهب إلى السوق وأشتريه له فقال صلي الله عليه وسلم
اتبع ما ليس عندك
বিখ্যাত সাহাবী হযরত হাকিম বিন হিযাম যখন রাসূলুল্লাহ (সা) কে প্রশ্ন করলেন, হে রাসূলুল্লাহ (সা) ক্রেতা আমার নিকট আসে এবং আমার কাছ থেকে কোন মাল কিনতে চায় কিন্তু সে মাল আমার কাছে থাকে না তারপর আমি বাজারে যাই এবং ক্রেতার জন্য কিনে এনে তাকে বুঝিয়ে দেই এটা কি ঠিক? মহানবী (সা) বললেন “যে মাল তােমার কাছে নেই তার ব্যবসা তুমি কর না।”
.
অতএব এটা স্পষ্টই নিষেধাজ্ঞা। এমতাবস্থায় কোন ব্যক্তির জন্য এটা ঠিক নয়
যে, সে এমন মালের লেনদেন করে যা তার হাতে নেই। সে অবস্থায় ব্যবসায়ে
নগদ ব্যবসা করুক বা বাকীতে ব্যবসা করুক। সকল ব্যবসায়ীগণের এই সাবধান
বাণী হচ্ছে যে এ ব্যাপারে কোন শিথিলতা করা যাবে না ।
.
কিন্তু যে ব্যক্তির মাল তার বাড়িতে আছে বা দোকানে আছে বা গােডাউনে
আছে বা তার গাড়িতে আছে (যেমন ঃ হকারদের থাকে) বা তার অফিসে আছে।
যেমন ঃ সােল এজেন্টরা করে থাকে। এমতাবস্থায় মাল তার নিকট প্রস্তুত আছে।
বলে ধরে নেওয়া হবে। এরপর যখন ক্রেতাগণ কেনার উৎসাহী হবেন তখন নগদ
বা বাকী চুক্তির ভিত্তিতে লেনদেন করবেন।
.
যদি কেউ এরূপ বলে ? উপরােক্ত ব্যবসায়িক নিয়মাবলীগুলি তত্ত্বাবধানিক
ব্যবসার মত হয়ে গেল না এবং এর ফলে এটা বায়ে সালাম বা সূনির্দিষ্ট চুক্তি
ভিত্তিক ব্যবসার আরেকরূপ প্রকাশিত হল? তবে এর উত্তরে আমি বলবাে এ
ব্যাপারে সালাম বা চুক্তি ভিত্তিক ব্যবসার শর্ত হল চুক্তির সময় পূর্ণমূল্য গ্রহণ করা।
আর উপরােল্লিখিত ব্যবসায়ের মূল্য বাকী রাখা হয় তা আর সে ক্ষেত্রে তা ঋণ
ভিত্তিক ব্যবসা হয়ে যায়। দাম পরে শােধের ভিত্তিতে মালও পরে দেওয়া হবে।
এক্ষেত্রে এ সকল অবস্থাই হারাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published.