১ম ঘটনা -উসমান ইবনে আফফান রাঃ এর জন্ম ও বংশ

জন্ম ও বংশ
আবরাহা কর্তৃক মক্কা আক্রমণের ছয় বছর পরে উসমান রা. মক্কায় জন্মগ্রহণ করেন।
কেউ কেউ তাঁর জন্মস্থান তায়েফ বলে আখ্যায়িত করেছেন।
তিনি ছিলেন রাসুলুল্লাহ সা. থেকে বয়সে পাঁচ বছরের ছােট।
জাহিলি যুগে উসমান রা.-এর কুনিয়াত তথা উপনাম ছিল আবু আমর।
তার স্ত্রী রাসুলুল্লাহ সা.-এর কন্যা রুকাইয়া রা.-এর গর্ভে একজন পুত্রসন্তান
জনুগ্রহণ করেন। তাঁর নাম রাখা হয় আবদুল্লাহ। তখন তিনি আবু আবদুল্লাহ
উপনাম গ্রহণ করেন। মুসলমানরাও তাঁকে এ নামে ডাকতে থাকে।
বংশপরিক্রমা : উসমান ইবনে আফফান ইবনে আবিল আস ইবনে উমাইয়া
ইবনে আবদে শামস ইবনে আবদে মানাফ ইবনে কুসাই ইবনে কিলাব।
এভাবে তার নাম বংশানুক্রম আবদে মানাফের মাধ্যমে মিলেছে রাসুলুল্লাহ
সা.-এর বংশের সাথে। উসমান রা.-এর মায়ের নাম আরওয়া বিনতে কুরাইজ
ইবনে রবিআ ইবনে হাবিব ইবনে আবদে শামস ইবনে আবদে মানাফ ইবনে  কুসাই।
.
উসমান রা.-এর নানি উম্মে হাকিম আলবাইজা বিনতে আবদিল মুত্তালিব
ছিলেন রাসুল সা.-এর পিতা আবদুল্লাহর বােন। সুতরাং উসমান রা. ছিলেন।
রাসুলুল্লাহ সা.-এর ফুফাত বােনের ছেলে। আর রাসুলুল্লাহ সা. ছিলেন তার
মায়ের মামাত ভাই। উসমান রা.-এর মা ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন এবং তাঁর
খিলাফাত কালে ইনতেকাল করেন। উসমান রা.-এর পিতা ইনতেকাল করেন
জাহিলি যুগে। উসমান রা.-কে জুননুরাইন উপাধিতে স্মরণ করা হয়। পৃথিবীর
সৃষ্টিলগ্ন থেকে কিয়ামত পর্যন্ত উসমান রা. ছাড়া আর কেউই কোনাে নবির দুই
মেয়েকে বিয়ে করার সৌভাগ্য লাভ করতে পারবে না।
এজন্য তাকে জুননুরাইন বলা হয়।
রেফারেন্স
১. সুনানে বায়হাকি : ৭/৭৩
২. সাদিক আরজুন প্রণীত “উসমান ইবনে আফফান : ৪৫।
৩. আততামহিদ ওয়াল বায়ানি ফি মাকতালিশ শাহিদ উসমান : ১৯।
৪. তাবাকাতে ইবনে সাআদ : ৩/৫৩; আলইসাবাহ : ৪/৩৭৭।
৫. মুহাম্মাদ ইয়াহইয়া আলআন্দুলুসি প্রণীত ‘আততামহিদ ওয়াল বায়ালি ফি মাকতালিশ শাহিদ উসমান : ১৯।

Leave a Reply

Your email address will not be published.